চার মাস পর নয়া যুবভারতী পাবে তিলোত্তমা

যুবভারতীতে চলছে টার্ফ তোলার কাজ৷ ছবি: মিতুল দাস৷

কলকাতা: বিশ্বকাপ মানেই ঘাসের মাঠ৷ প্রথমবার ভারতের মাটিতে বসবে ২০১৭ অনূর্ধ্ব বিশ্বকাপের আসর৷ সেই কথা মাথায় রেখেই যুবভারতীতেও শুরু হয়ে গিয়েছে কৃত্রিম অ্যাস্ট্রোটার্ফ তোলার কাজ৷ লক্ষ্য সবুজ উন্নত ঘাসে যুবভারতীকে মুড়ে ফেলা৷
গ্রীষ্মের চড়া রোদের মধ্যে চলছে টার্ফ তোলার কাজ৷ জনা তিরিশেক শ্রমিক সকাল ৬টা থেকে বিকেল ৬টা পর্যন্ত কৃত্রিম ঘাস তোলার কাজ করছেন৷ এরপর কাজের গতি বাড়াতে প্রায় ১৫০ জন মজুরের একসঙ্গে কাজ করার কথা৷ সেক্ষত্রে ফ্লাড লাইট জ্বালিয়েও চলবে মাঠ তৈরির কাজ৷ সিভিল ইঞ্জিনিয়ারদের পরামর্শ অনুযায়ী চলছে কাজ৷ টার্ফ তোলার কাজ ৩১ মে-র মধ্যে শেষ করার নির্দেশ দেওয়া আছে তাঁদের৷ পয়লা জুন থেকে শুরু হয়ে যাবে ঘাস রোপনের কাজ৷ নতুন ঘাসের বীজ নিয়ে আসা হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে৷ প্রায় ৫ ইঞ্চি পুরু করে ঘাস বসানো হবে৷ সেই সঙ্গে মাঠের নীচ দিয়ে ড্রেনেজের ব্যবস্থা করা হবে৷ মাঠে জল দেওয়ার জন্য থাকবে স্প্রিঙ্কলার৷ যুবভারতীকে নতুন করে তোলার জন্য দায়িত্ব প্রাপ্ত সংস্থাকে ৩১ অগস্ট পর্যন্ত সময় দিয়েছে সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন৷কারণ অক্টোবরেই শুরু হয়ে যাবে আইএসএল-এর দ্বিতীয় মরশুম৷ তার আগে আবার রয়েছে কলকাতা লিগ৷ ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান ডার্বি দিয়ে যুবভারতীর ঘাসের মাঠের উদ্বোধন করা হতে পারে৷

saltlake-02
যুবভারতীর পাশাপাশি সল্টলেক স্টেডিয়াম চত্ত্বরের আরও দু’টি ঘাসের মাঠেও ঘাস ছেঁটে ফেলে নতুন করে ঘাস বসানো হবে৷ শোনা যাচ্ছে, যুবভারতীর অ্যাস্ট্রোটার্ফ কিশোরভারতী স্টেডিয়ামে বসানো হতে পারে৷ ফিফার নির্দেশেই কৃত্রিম ঘাস বদলে ঘাসের মাঠ তৈরি হচ্ছে৷ তবে সেই মাঠের দেখভাল করা তুলনামূলকভাবে ব্যয়বহুল৷ তবে সেসব চিন্তা আপাতত মাথা থেকে সরিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতিতেই মন দিয়েছে ফেডারেশন৷

All rights reserved by @ Kolkata24x7 II প্রতিবেদনের কোন অংশ অনুমতি ছাড়া প্রকাশ করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ
-